fbpx

কক্সবাজার থেকে ভাসানচরের পথে সপ্তম দফায় ২৫৭ রোহিঙ্গা

Pinterest LinkedIn Tumblr +

নোয়াখালীর ভাসানচরের উদ্দেশে আজ কক্সবাজারের উখিয়ার আশ্রয়শিবির থেকে রওনা দিয়েছে ১২৬ পরিবারের ২৫৭ জন রোহিঙ্গা।

বুধবার (২৪ নভেম্বর) বেলা সোয়া ১১টায় উখিয়া ডিগ্রি কলেজ মাঠের অস্থায়ী প্রত্যাবাসনকেন্দ্র থেকে রোহিঙ্গাদের আলাদা সাতটি বাসে করে চট্টগ্রামের উদ্দেশে পাঠানো হয়।

অতিরিক্ত শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মোহাম্মদ শামছু-দ্দৌজা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

শামছু-দ্দৌজা বলেন, আজ সকালে সপ্তম দফার প্রথম ধাপে কক্সবাজার থেকে সাতটি বাসে কিছু রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থানান্তরের উদ্দেশে চট্টগ্রাম পাঠানো হয়েছে। আরও কিছু রোহিঙ্গা পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে। কিন্তু কতজন যাচ্ছে, তা এ মুহূর্তে নিশ্চিত করে বলা সম্ভব নয়। এর আগে, ছয় দফায় রোহিঙ্গা স্থানান্তর হয়েছিল ১৮ হাজার ৫০০ জন।

জাতিসংঘ যুক্ত হওয়ার পর এটাই ভাসানচরে প্রথম দফায় রোহিঙ্গাদের স্থানান্তর কার্যক্রম। এছাড়া, শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার (আরআরআরসি) কার্যালয়সহ জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থা, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, এনজিও সংস্থা এই রোহিঙ্গা স্থানান্তর কার্যক্রমে যুক্ত রয়েছে।

আরআরআরসি কার্যালয় সূত্রের তথ্য অনুযায়ী, দীর্ঘ আলাপ-আলোচনা ও প্রস্তুতির পর ২০২০ সালের ৪ ডিসেম্বর রোহিঙ্গাদের প্রথম দলটিকে কক্সবাজার থেকে ভাসানচরে পাঠানো হয়। এরপর গত ২ এপ্রিল পর্যন্ত মোট ছয় দফায় ১৮ হাজার ৫০০ জনকে ভাসানচরে নেওয়া হয়।

এদিকে, ভাসানচরের আশ্রয়শিবিরে মোট এক লাখ রোহিঙ্গাকে সরিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনা আছে সরকারের। সেই লক্ষ্যে, সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে ৩ হাজার ৯৫ কোটি টাকা ব্যয়ে নোয়াখালীর হাতিয়ার ভাসানচরে এক লাখ রোহিঙ্গার ধারণক্ষমতার আশ্রয়ণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করে বাংলাদেশ নৌবাহিনী। ১৩ হাজার একর আয়তনের সেই চরে এক লাখ রোহিঙ্গা বসবাসের উপযোগী ১২০টি গুচ্ছগ্রামের অবকাঠামো তৈরি করা হয়।

Share.

Leave A Reply