fbpx

ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের ঈদের আগেই উপবৃত্তি দিচ্ছে সরকার

Pinterest LinkedIn Tumblr +

২০২০ সালের জুলাই থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত টানা ছয়মাসের উপবৃত্তির টাকা পাবে ১ কোটি ৪০ লাখ ক্ষুদে শিক্ষার্থী। আর এই উপবৃত্তির টাকা ঈদের আগেই পৌঁছে যাবে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মায়েদের কাছে। পাশাপাশি, এককালীন আরও এক হাজার টাকা জামা-জুতা কেনার জন্য পাবে তারা।

প্রাথমিক উপবৃত্তির প্রকল্প সূত্র থেকে জানা গেছে, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রাথমিক পর্যায়ে এক কোটি ৪০ লাখ ক্ষুদে শিক্ষার্থীকে ডাক বিভাগের ডিজিটাল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস ‘নগদ’এর মাধ্যমে সরকার উপবৃত্তি দিচ্ছে।

এবার খুবই সতর্কতার সাথে নতুন অর্থ মায়েদের কাছে পৌঁছানোর পরিকল্পনা করেছে সরকার। কারণ, এর আগে দেশের বিভিন্ন স্থানে প্রতারক চক্র শিক্ষার্থীদের মায়েদের মোবাইলে ফোন করে নগদের পিন নম্বর, ওয়ান টাইম পাসওয়ার্ড (ওটিপি) জালিয়াতি করে টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।

প্রকল্প সূত্র আরও জানিয়েছে, প্রায় এক বছর করোনা পরিস্থিতির কারণে উপবৃত্তি কার্যক্রম বন্ধ ছিল। তাই এ বছর প্রথমে গত বছরের বকেয়া অর্থ মায়েদের কাছে আগামী ১৫ দিনের মধ্যে পৌঁছে যাবে।

প্রাথমিক উপবৃত্তির প্রকল্প পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) মো. ইউসুফ আলী সংবাদমাধ্যমকে জানান, ২০২০ সালের জুলাই থেকে ডিসেম্বরের অর্থ শিক্ষার্থীদের মায়েদের নগদ অ্যাকাউন্টে দেওয়া হবে। দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে যেহেতু প্রতারণার তথ্য পাওয়া যাচ্ছে, তাই ৫টি উপজেলায় পাইলটিং করা হবে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে। আর সব রিপোর্ট পজিটিভ আসলে সারাদেশে উপবৃত্তির টাকা পরবর্তী এক সপ্তাহের মধ্যে পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

ইউসুফ আলী জানান, পাইলটিং করার এই পরিকল্পনা মূলত প্রতারক চক্রের প্রতারণা এড়াতেই নেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে, এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক, আইন-শৃঙ্খলাবাহিনীর সাথে আলোচনা করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

প্রকল্প পরিচালক আরও জানান, বকেয়া এই ছয় মাসের অর্থ নিরাপদভাবে পৌঁছানোর পর পরবর্তী তিন মাসের অর্থ পাঠানো হবে। অর্থাৎ এই বছরের জানুয়ারি থেকে মার্চ মাসের অর্থ দেওয়া হবে। আর তা কার্যকর করা হবে আগামী মে থেকে জুন মাসের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে।

প্রায় এক বছর এই প্রকল্প বন্ধ থাকার পর প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর গত ডিসেম্বরে ‘নগদ’-এর সাথে চুক্তি করে। চুক্তির তিন মাসের মধ্যে প্রায় দেড় কোটি শিক্ষার্থী ও তাদের মায়ের তথ্যসহ ডাটাবেজ তৈরি করা হয়েছে।

Share.

Leave A Reply