fbpx

গ্রেপ্তার হতে পারেন সমীর ওয়াংখেড়ে, চাইলেন নিরাপত্তা

Pinterest LinkedIn Tumblr +

মাদক নিয়ন্ত্রক সংস্থা (এনসিবি)’র অন্যতম তদন্তকারী অফিসার সমীর ওয়াংখেড়েকে নিয়ে বেশ কিছুদিন থেকেই বিতর্ক দানা বাধছে। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে, শাহরুখপুত্রের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য জোগাড়ের চেষ্টা করেছেন তিনি টাকার বিনিময়ে। যদিও সেই দাবি এনসিবি উড়িয়ে দিয়েছে।

সমীরের বিরুদ্ধে অনেকেই আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ করার কথা বলেছেন। এই অবস্থায় সমীর আশংকা করছেন, তাকে গ্রেপ্তার করা হতে পারে। একারণেই নিজের সুরক্ষা চাইতে গত রবিবার(২৪ অক্টোবর) মুম্বাই পুলিশ কমিশনারের কাছে গিয়েছিলেন সমীর। এমনকি সোমবার(২৫ অক্টোবর) আদালতের দ্বারস্থ হলেন তিনি।

মাদক মামলার বিশেষ আদালতে বিচারককে সমীর বলেন, ‘আমার পরিবার, বোন, এমনকি মৃত মাকেও নিশানা করা হচ্ছে। যে কোনও ধরনের তল্লাশির জন্য আমি রাজি। ১৫ বছর ধরে কাজ করছি। কিন্তু আমার ব্যক্তিগত জীবন আর কাজ নিয়ে এমন অভিযোগ এর আগে কখনও ওঠেনি।’

সমীরের নামে অভিযোগ উঠেছে, তিনি আরিয়ান খানের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দেওয়ার জন্য এই মামলার অন্যতম সাক্ষী প্রভাকর সেইলকে বিপুল পরিমান অর্থ দিতে চেয়েছিলেন।

রবিবার(২৪ অক্টোবর) এমনই দাবি করেছিলেন এই মামলার অন্যতম সাক্ষী প্রভাকর সেইল। তিনি  জানিয়েছেন, প্রমোদতরীতে তল্লাশি চালানোর দিন এনসিবি ১০ পাতার একটি ফাকা পঞ্চনামা তাকে দিয়ে সই করিয়ে নিয়েছিল।

তিনি আরও দাবী করেছেন, আরিয়ানের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যের বিনিময়ে বিপুল পরিমাণ টাকার প্রস্তাব এসেছিল সমীরের তরফে। সোমবার মুম্বাইয়ের পুলিশ কমিশনরের দফতরে গিয়েছিলেন প্রভাকর।

উল্লেখ্য, এনসিবি’র হেফাজতে আরিয়ানের সঙ্গে কিরণ পি গোসাভি নামে একজন সেলফি তুলেছিলেন। তিনি এনসিবি দফতরের কেউ কি না, তা নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়েছিল। এরপর এনসিবি বিবৃতি দিয়ে জানায় যে, কিরণ তাদের কেউ নয়। বরং কিরণকে এই মামলার অন্যতম সাক্ষী হিসেবে তুলে ধরা হয়। ঘটনার পর থেকেই পলাতক কিরণ।

এসব আলোচনা চলাকালীন রবিবার আরও একটি ভিডিও ফাস হয়েছে, যাতে দেখা যায় এনসিবি’র হেফাজতে নিজের ফোন থেকে আরিয়ানকে কারও সঙ্গে কথা বলাচ্ছেন কিরণ। প্রভাকর দাবি করেন, তিনি ছিলেন কিরণের দেহরক্ষী। তার আরও দাবি ছিল, কিরণকে অর্থ দেওয়ার কথা তিনি শুনেছেন। তার পর থেকেই বিতর্ক।

Share.

Leave A Reply