fbpx

জুম অ্যাপকে টেক্কা দেবে দেশি অ্যাপ ‘বৈঠক’

Pinterest LinkedIn Tumblr +

করোনার কারণে বিশ্ব যখন লকডাউনের কবলে, ঠিক তখন বেশিরভাগ সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান হোম অফিস চালু করে। ফলে এসব প্রতিষ্ঠানের কাছে অনলাইনে মিটিং সারতে জুম অ্যাপ ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করে।

এরই ধারাবাহিকতায় এবার এগিয়ে এসেছে আমাদের দেশি প্রোগ্রামাররা। তাঁরা তৈরি করেছে নতুন ভিডিও কনফারেন্সিং অ্যাপ ‘বৈঠক’। আর তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি (আইসিটি) মন্ত্রণালয় এটি পরীক্ষামূলকভাবে চালুও করেছে।

রবিবার (২৫ এপ্রিল) ভার্চুয়ালি এই অ্যাপের উদ্বোধন করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। সেখানে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ব্যবহারের জন্য বৈঠক অ্যাপের প্রথম ১০টি ক্রেডেনশিয়াল হস্তান্তর করা হয়।

অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশি সফটওয়্যার শিল্পের জন্য উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে এই অ্যাপ। এর মাধ্যমে আমরা জুমসহ অন্যান্য অ্যাপের ওপর নির্ভরতা কাটিয়ে উঠতে পারব।‘

মন্ত্রী এসময় দেশীয় সার্ভার সংরক্ষণের কারণে ডেটার সুরক্ষা নিশ্চিত করার প্রতি বিশেষ জোর দেন। বলেন, ‘তথ্যের নিরাপত্তার বিষয়ে আমরা যেন আপস না করি। কারণ চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের সময় তথ্যই হয়ে উঠেছে প্রধান চালিকাশক্তি। ডেটার সুরক্ষা নিয়ে সচেতন থাকতে হবে সবাইকে।‘

এই অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। তিনি বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বৈঠক অ্যাপ ব্যবহার করবে। এরপর সরকারি অন্যান্য মন্ত্রণালয় ও বিভাগ এবং পরে সাধারণ মানুষের জন্য অ্যাপটি উন্মুক্ত করা হবে।‘

’বৈঠক’ প্ল্যাটফর্মকে জুম, ওয়েবেক্স, টিমজের মতো প্ল্যাটফর্মগুলোর সঙ্গে ‘প্রতিযোগিতায় সক্ষম’ করে গড়তে চাওয়ার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন প্রতিমন্ত্রী।

বাংলাদেশের নিজস্ব সার্ভারে হোস্টিং করার কারণে এর তথ্যের সুরক্ষা নিশ্চিত করা সহজ হবে বলেও মন্তব্য করেন পলক। পাশাপাশি বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রাও সাশ্রয় করা সম্ভব বলেও জানান তিনি।

অর্থ মন্ত্রণালয়, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ এরই মধ্যে ‘বৈঠক’ অ্যাপ নিয়ে আগ্রহ দেখিয়েছে। সরকারের অভ্যন্তরীণ ব্যবহারের পাশাপাশি শিগগিরই এটা জনগণের ব্যবহারের জন্য উন্মুক্ত করা হবে বলেও উল্লেখ করেন পলক।

Share.

Leave A Reply