fbpx

তীব্র যানজটে অতিষ্ঠ রাজধানীবাসী, বেশি ভোগান্তি মতিঝিল-পল্টনগামী যাত্রীদের

Pinterest LinkedIn Tumblr +
Advertisement

রাজধানীতে যানজট এখন নিত্যদিনের সঙ্গী। তবে আজ বুধবার এই যানজট তীব্র আকার ধারণ করেছে। বিশেষ করে মতিঝিল ও পল্টনের দিকে যেতে বেশি ভোগান্তিতে পড়ছেন যাত্রীরা।

এক ভুক্তভোগী জানান, স্বাভাবিক সময়ে মোটরসাইকেলে রাজধানীর রামপুরা থেকে দিলকুশা যেতে আধঘণ্টার মতো সময় লাগে। কিন্তু বুধবার সকাল ১০টার দিকে এই পথ যেতে এক ঘণ্টার মতো লেগেছে। রাজধানীর অন্যান্য অংশের অবস্থাও একই রকম। তবে মোটরসাইকেল আরোহীদের চেয়ে বাসের যাত্রীদের বেশি ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।

বুধবার সকালে বাড্ডা থেকে রামপুরার আবুল হোটেলের সামনের অংশ পর্যন্ত পুরো সড়কে যানবাহনের ব্যাপক চাপ দেখা যায়। যানবাহনগুলো থেমে থেমে চলছিল।

সড়কে দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা জানান, রাজধানীর নয়াপল্টনসহ কয়েকটি স্থানে বিএনপিসহ সরকারবিরোধীরা আজ গণ-অবস্থান কর্মসূচি পালন করছে। অন্যদিকে, ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীরা পাল্টা কর্মসূচি পালন করছেন। এ কারণে আজ রাজধানীর সড়কে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়েছে।

ট্রাফিক পুলিশের কন্ট্রোল রুম থেকে জানানো হয়েছে, সড়কে স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় যানবাহনের চাপ বেশি রয়েছে। তবে কোনো সড়ক একেবারে বন্ধ হয়ে আছে কি-না, তা তারা নিশ্চিত করতে পারেননি।

সকালে পল্টন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, বিএনপির গণ-অবস্থান কর্মসূচিতে অংশ নিতে সকাল ৯টার পর থেকেই বিভিন্ন এলাকা থেকে নেতা-কর্মীরা আসছেন। অনেকেই আসেন খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে। ফলে সড়কে যান চলাচলে বিঘ্ন ঘটে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এর প্রভাব বাড়তে থাকে।

দুপুর ১টায় গুগল ম্যাপে দেখা যায়, রাজধানীর কাকরাইল, পুরানা পল্টন, প্রেসক্লাব, ফকিরাপুল, সেগুনবাগিচা- এসব এলাকায় তীব্র যানজট রয়েছে। যানজট দেখা গেছে, ফার্মগেট থেকে শাহবাগ হয়ে মৎস্য ভবন পর্যন্ত সড়কেও। অনেকেই তীব্র জ্যামের কারণে সময়মতো অফিসে পৌঁছাতে পারেননি।

ভুক্তভোগীরা জানান, রাজনৈতিক দলের কর্মসূচি খোলা মাঠে হওয়া উচিত। তা না হলে সাধারণ মানুষের ভোগান্তি কমবে না।

ঢাকা মহানগর ট্রাফিক পুলিশের রমনা বিভাগের পরিদর্শক (প্রশাসন) শেখ ওজিয়ার রহমান বলেন, কিছু রাস্তায় যানবাহনের চাপ বেশি রয়েছে। তবে তারা পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে চেষ্টা করছেন।

Advertisement
Share.

Leave A Reply