fbpx

‘ই-ভ্যালি’ গ্রাহকদের পাশে থাকবে বলেই বিশ্বাস ফারিয়ার

Pinterest LinkedIn Tumblr +

ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই স্রোতের বিপরীতে হাঁটতেই বেশি পছন্দ করেন অভিনেত্রী শবনম ফারিয়া। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ সরব এই অভিনেত্রী। মাঝে মাঝেই বিতর্কিত পোস্ট শেয়ার করে খবরের শিরোনাম হন তিনি। সম্প্রতি একটি ঘটনায় বারবার ঘুরে ফিরে আসছে ফারিয়ার নাম।

বিপুল দেনায় ডুবতে বসা ই-ভ্যালির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ রাসেল এবং তার স্ত্রী কোম্পানির চেয়ারম্যান মোছা. শামীমা নাসরিনকে বৃহস্পতিবার গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। নিজেদের পাওনা ঠিক মত পাবেন কিনা এ নিয়ে কোম্পানিতে বিনিয়োগ করা হাজার হাজার মানুষ নিজেদের পাওনা আদায়ে সোচ্চার হয়েছেন।

গত জুন মাস থেকে ই-ভ্যালির প্রধান জনসংযোগ কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন শবনম ফারিয়া। এই ঘটনার রেশ ধরে অনেকেই তার দিকে আঙুল তুলেছেন। তবে এই অভিনেত্রী জানিয়েছেন তিনি আর ই-ভ্যালির সাথে নেই। মাস খানেক আগেই নাকি তিনি এই কোম্পানি ত্যাগ করেছেন।

ফারিয়ার এসব কথাকে অগ্রাহ্য করে অনেক গণমাধ্যম তাদের ইচ্ছামত খবর ছাপছেন। অনেকে  লিখেছেন ফারিয়া ই-ভ্যালি থেকে বেতন পাননি বলে এই কোম্পানির দায়িত্ব ছেড়েছেন। কিন্তু এই যুক্তিকে ফারিয়া উড়িয়ে দিয়েছেন। এমন ধরনের কথা তিনি কখনই বলেননি বলেও জানান।

এ বিষয়ে প্রতিবাদ জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি পোস্ট শেয়ার করেছেন ফারিয়া। তিনি লেখেন, জুন-জুলাই এই দুই মাস একটি “ই কমার্স সাইটে” তাদের গণসংযোগ বিভাগে কাজ করেছেন তিনি। সেখানে যোগদানের ১৫ দিন পর থেকেই বাংলাদেশ ব্যাংকের একটি রিপোর্ট চলে আসায় তাদের কার্যক্রম অনেকটাই কমে এসেছিল। জুলাইয়ের পর এই অভিনেত্রীর দাপ্তরিক কোন কাজই ছিল না। তাই আগস্টে তিনি চাকরি ছেড়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

এমনকি উল্টাপাল্টা কিছু তথ্য শেয়ার করার জন্যও তিনি গণ মাধ্যম কর্মীদের এক হাত নেন। ফারিয়ার অভিযোগ, ই-ভ্যালি থেকে কোন বেতন পাননি’ এমন অভিযোগ তিনি কোথায়ও করেরনি। এমনকি তিনি এই কথার প্রেক্ষিতে প্রমাণও চেয়েছেন।

তবে ই-ভ্যালির এই দুঃসময়ে একেবারেই এই কোম্পানিকে অস্বীকার করছেন না ফারিয়া। যে কোম্পানিতে তিনি কাজ করেছেন, সেই কোম্পানি হয়তো খারাপ পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। তবে সব দেনা পরিশোধ করে গ্রাহকদের পাশে থাকবে এই কোম্পানি, এমনটাই আশা করেন এই অভিনেত্রী।

Share.

Leave A Reply