fbpx

পদ্মা সেতুর দুর্নীতি তত্ত্ব: ষড়যন্ত্রকারীদের খুঁজতে কমিশন গঠনের নির্দেশ হাইকোর্টের

Pinterest LinkedIn Tumblr +
Advertisement

পদ্মা সেতু নির্মাণ চুক্তি নিয়ে দুর্নীতির মিথ্যা গল্প সৃষ্টির নেপথ্যের ষড়যন্ত্রকারীদের খুঁজে বের করতে সরকারকে আগামী ৩০ দিনের মধ্যে কমিশন গঠনের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

২৮ জুন (মঙ্গলবার) বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আগামী ৩০ দিনের মধ্যে কমিশন গঠন করে দুই মাসের মধ্যে এর প্রতিবেদন জমা দিতে বলেছেন আদালত। পরবর্তী আদেশের জন্য ২৮ আগস্ট দিন ধার্য করা হয়েছে।

২০১৭ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি ‘ইউনূসের ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান, বিচার দাবি’ শিরোনামে একটি জাতীয় দৈনিকে প্রতিবেদন ছাপা হয়। ওই প্রতিবেদনসহ কয়েকটি দৈনিকের প্রতিবেদন নজরে এলে ২০১৭ সালের ২০ ডিসেম্বর হাইকোর্ট স্বতঃপ্রণোদিত রুলসহ আদেশ দেন।

রুলে পদ্মা সেতু নিয়ে দুর্নীতির মিথ্যা গল্প সৃষ্টির নেপথ্যের ষড়যন্ত্রে যুক্ত প্রকৃত অপরাধীদের খুঁজে বের করতে কমিশন গঠনে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়। একই সঙ্গে দোষী ব্যক্তিদের কেন বিচারের মুখোমুখি করা হবে না, তাও জানতে চাওয়া হয় রুলে। এছাড়া কমিশন গঠন ও কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে—৩০ দিনের মধ্যে তার অগ্রগতি মন্ত্রিপরিষদ সচিবকে জানাতে বলা হয়।

পদ্মা সেতু নিয়ে দুর্নীতির মিথ্যা গল্প সৃষ্টির নেপথ্যের ষড়যন্ত্রকারীদের খুঁজে বের করতে কমিশন গঠন প্রশ্নে সাড়ে চার বছর আগে হাইকোর্টের দেওয়া স্বতঃপ্রণোদিত রুল শুনানির জন্য গত রোববার আদালতে উপস্থাপন করে রাষ্ট্রপক্ষ। পরদিন গতকাল সোমবার বিষয়টি কার্যতালিকায় ওঠে।

গতকাল আদালত প্রয়োজনীয় আদেশের জন্য আজ মঙ্গলবার দিন ধার্য করেন। এর আগে আদালত রাষ্ট্রপক্ষ, দুদক কৌঁসুলিসহ সংশ্লিষ্ট আইনজীবীর বক্তব্য শুনবেন বলে জানান। এর ধারাবাহিকতায় আজ শুনানি নিয়ে আদেশ দেওয়া হয়।

চার সপ্তাহের মধ্যে মন্ত্রিপরিষদ সচিব, স্বরাষ্ট্রসচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক, যোগাযোগসচিব, দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যানসহ বিবাদীদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

পাশাপাশি এ কমিটি বা কমিশন গঠনের বিষয়ে কি পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে সে ব্যাপারে ৩০ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিবকে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

Advertisement
Share.

Leave A Reply