fbpx
BBS_AD_BBSBAN
৪ঠা ডিসেম্বর ২০২২ | ১৯শে অগ্রহায়ণ ১৪২৯ | পরীক্ষামূলক প্রকাশনা

বন্দি দশায় দুবাইয়ের প্রিন্সেস, বন্ধুদের ভিডিও বার্তা

Pinterest LinkedIn Tumblr +
Advertisement

দুবাইয়ের শাসকের মেয়ে প্রিন্সেস লতিফা আল মাকতুম । ২০১৮ সালে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছিলেন। এরপর, বন্ধুদের পাঠানো গোপন এক ভিডিও বার্তায়, তাকে ‘জিম্মি’ করে রাখা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন। আর এই অভিযোগের আঙ্গুল তোলেন সরাসরি বাবা শেখ মোহাম্মদ বিন রশীদ আল মাকতুমের দিকেই। লতিফা তার জীবন নিয়েও শঙ্কা প্রকাশ করেন।

বিবিসির প্যানোরামা অনুষ্ঠানকে দেওয়া এক ফুটেজে রাজকুমারী বলেন, তিনি নৌকায় করে পালিয়ে যাওয়ার পর কমান্ডোরা তাকে মাদকাচ্ছন্ন করে বন্দিশালায় নিয়ে আসে। লতিফার ভিডিও বার্তা পাঠানো বন্ধ হয়ে গেলে বন্ধুরা জাতিসংঘকে এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানান। লতিফার নিরাপত্তার প্রশ্নেই তাদের গোপোন ভিডিওগুলো প্রকাশ করেন বন্ধুরা।

বন্দি দশায় দুবাইয়ের প্রিন্সেস, বন্ধুদের ভিডিও বার্তা

লতিফার নিরাপত্তার প্রশ্নেই তাদের গোপোন ভিডিওগুলো প্রকাশ করেন বন্ধুরা।
ছবি : বিবিসি

তবে দুবাই ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের দাবি, পরিবারের তত্ত্বাবধানে নিরাপদেই রয়েছেন প্রিন্সেস লতিফা।

২০১৮ সালে প্রিন্সেসের সাথে দেখা করেন জাতিসংঘের সাবেক মানবাধিকার কমিশনার ও আয়ারল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট মেরি রবিনসন। লতিফার সাথে দেখা করে তিনি জানিয়েছেলেন, ‘ রাজকুমারীর পরিবার তাকে “ভয়াবহভাবে ধোঁকা দিয়েছিল।”

তিনিই লতিফার বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে বিস্তারিত খোঁজখবর নিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানান। রবিনসন বলেন, “লতিফার বিষয়ে আমি খুবই উদ্বিগ্ন রয়েছি। সবকিছু বদলে গেছে। আর তাই আমার মনে হয় এ বিষয়ে তদন্ত হওয়া দরকার।’

তবে লতিফাকে কোথায় আটকে রাখা হয়েছে সেটি স্বতন্ত্রভাবে যাচাই করেছে প্যানোরামা।

মানবাধিকারকর্মীর বলেছেন, শেখ মোহাম্মদ একটি বিশাল শহর গড়ে তুলেছেন, তবে সেখানে ভিন্নমতের প্রতি কোন সহনশীলতা নেই। বিচার ব্যবস্থা নারীদের প্রতি বৈষম্য করতে পারে।

লতিফার বাবা শেখ মোহাম্মদ বিন রশীদ আল মাকতুম বিশ্বের ধনী রাষ্ট্রপ্রধানদের একজন । তিনি দুবাইয়ের শাসক ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের ভাইস-প্রেসিডেন্ট।

Advertisement
Share.

Leave A Reply