fbpx

বিদেশি টিভির বিজ্ঞাপনমুক্ত সম্প্রচার শুরু ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে: তথ্যমন্ত্রী

Pinterest LinkedIn Tumblr +

আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে বিদেশি টিভি চ্যানেলগুলোর ‘ক্লিন ফিড’ অর্থাৎ বিজ্ঞাপনমুক্ত সম্প্রচার বাস্তবায়ন করতে হবে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

আজ বৃহস্পতিবার (২ সেপ্টেম্বর) দুপুরে সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে অ্যাসোসিয়েশন অব টেলিভিশন চ্যানেল ওনার্স ‘এটকো’, ক্যাবল অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ ‘কোয়াব’, স্যাটেলাইট টিভি চ্যানেল ডিস্ট্রিবিউটর এবং ডাইরেক্ট টু হোম ‘ডিটিএইচ’ সেবা প্রদানকারী সংস্থাগুলোর প্রতিনিধিদের সাথে বৈঠক শেষে মন্ত্রী সাংবাদিকদের একথা জানান। এসময় প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান এবং সচিব মো. মকবুল হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘আইন অনুযায়ী আমাদের দেশে সকল বিদেশি টিভি চ্যানেলগুলোর বিজ্ঞাপনমুক্ত (ক্লিন ফিড) সম্প্রচারের নিয়ম পালন, টিভি ক্যাবল নেটওয়ার্ককে ডিজিটাল পদ্ধতির আওতায় আনা এবং সংশ্লিষ্ট অসংগতি দূর করার উদ্দেশ্যে আমরা করোনা মহামারি শুরুর আগেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। যেহেতু প্রধানমন্ত্রীর প্রচেষ্টায় দেশে গণটিকার কার্যক্রমে ধীরে ধীরে করোনার প্রকোপ কমছে, সেই প্রেক্ষাপটে এখন আমরা আগের সিদ্ধান্তগুলো বাস্তবায়ন করবো’।

তথ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ‘দেশে যেসব বিদেশি চ্যানেল আছে, আইন অনুযায়ী তারা ক্লিন ফিড চালাতে বাধ্য। কিন্তু তাগাদা দেওয়া সত্ত্বেও এসব চ্যানেল ক্লিন ফিড করে পাঠাচ্ছে না। তাই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের পরে দেশে কোনো অবস্থাতেই ক্লিন ফিড ছাড়া বিদেশি চ্যানেলকে চালাতে দিতে পারি না। এরপর আইন প্রয়োগ করা হবে’।

ড. হাছান আরও জানান, ‘ক্লিন ফিড বাস্তবায়নে আইন প্রয়োগের পাশাপাশি ক্যাবল নেটওয়ার্ককে ডিজিটাল পদ্ধতির আওতায় আনার জন্য গ্রাহকদের অবহিত করার ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কারণ দেশ ডিজিটাল হয়েছে, কিন্তু এক্ষেত্রে যে অগ্রগতি হওয়ার প্রয়োজন ছিল সেটি এখনো হয়নি, তা হতে হবে’।

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘ক্যাবল অপারেটররা অনেক সময় সিনেমা, বিজ্ঞাপন এবং বিভিন্ন অনুষ্ঠান দেখায়। এগুলো আইনের ব্যত্যয়। আমরা সেগুলোর ব্যাপারেও এনফোর্সমেন্টে যাব’।

সম্প্রচারমন্ত্রী আরও বলেন, ‘আগামী ৩০ নভেম্বরের মধ্যে ঢাকা ও চট্টগ্রাম শহরের কেবল নেটওয়ার্কিং সিস্টেম ডিজিটালাইজড করা হবে। আর তা বাস্তবায়নের জন্য গ্রাহকদের অবহিত করতে একটি পরিপত্র জারি করা হবে। ৩০ নভেম্বরের পরে ঢাকা ও চট্টগ্রাম শহরে অ্যানালগ সিস্টেম আর কাজ করবে না। ডিজিটাল সেটআপ বক্সের মাধ্যমেই সম্প্রচারটা হবে’।

তিনি আরও বলেন, ‘আগামী ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে বিভাগীয় ও মেট্রোপলিটন শহর ছাড়াও কুমিল্লা, বগুড়া, দিনাজপুর, কুষ্টিয়া, রাঙ্গামাটি, কক্সবাজারকে অপারেটিং সিস্টেম ডিজিটালাইড করতে হবে। পুরো দেশের বিষয়টি নভেম্বরে বসে ঠিক করবো কীভাবে করা যায়’।

Share.

Leave A Reply