fbpx

বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচে যুক্তরাষ্ট্রের ঐতিহাসিক জয়

Pinterest LinkedIn Tumblr +
Advertisement

নিজের দেশের মাটিতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে কানাডাকে হারিয়ে ঐতিহাসিক জয় পেল যুক্তরাষ্ট্র। ১৪ বল এবং ৭ উইকেট হাতে রেখেই জিতেছে যুক্তরাষ্ট্র। এতে বিশ্বকাপের অভিষেক ম্যাচে জয়সহ ভাঙল একঝাঁক রেকর্ড!

রবিবার (২ জুন) ডলাসে টস জিতে ব্যাট বোলিং নেয় যুক্তরাষ্ট্র। ব্যাট করতে নেমে ৫ উইকেটে ১৯৪ রান সংগ্রহ করে কানাডা।যুক্তরাষ্ট্র সেই রান টপকে গেছে ১৪ বল আর ৭ উইকেট হাতে রেখে, যা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সহযোগী দেশগুলো মধ্যে রান তাড়ার রেকর্ডও।

এর আগে প্রথমবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে খেলতে নেমে ২০১৪ আসরে নেদারল্যান্ডস ১৯৩ রান তুলেছিল। অভিষেক কোনো দলের সেই রেকর্ড ভেঙে কানাডা আজ তোলে ১৯৪ রান। সেই লক্ষ্য তাড়ায় যুক্তরাষ্ট্রকে ইতিহাস গড়তে হতো। কারণ এর আগে তাদের সর্বোচ্চ ১৬৯ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড ছিল। কিন্তু দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে ম্যাচটি শেষ পর্যন্তই যেতে দিলেন জোন্সরা। অথচ ব্যাটিংয়ের মতো বোলিংয়ের শুরুটাও দারুণ ছিল কানাডার। প্রথম ৭ ওভারে মাত্র ৪৫ রান তুলতেই তারা যুক্তরাষ্ট্রের ২ উইকেট তুলে নেয়। সে কারণে শেষ ১৩ ওভারে যুক্তরাষ্ট্রের প্রয়োজন ছিল ১৫০ রান।

যুক্তরাষ্ট্রের নতুন রেকর্ড গড়ার দিনের মূল নায়ক অ্যারন জোন্স। চার নম্বরে ব্যাট করতে নেমে ২২ বলে ফিফটি করেন জোন্স, যা টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে যুক্তরাষ্ট্রের দ্রুততম ফিফটির রেকর্ড। তাঁর এই ইনিংসেই মূলত পুরো ম্যাচের চেহারা পাল্টে দেয়। ১০ ছক্কায় ৪০ বলে অপরাজিত ৯৪ রানের ইনিংস খেলেন জোন্স। তাঁকে যোগ্য সঙ্গ দেন তিন নম্বরে খেলা আন্দ্রিস গুস।

যদিও নিজেদের শেষ ৫ ম্যাচে কোনো জয়ের দেখা না পাওয়া কানাডা রীতিমতো ঝড় তুলেছিল ডালাসের প্রেইরি ভিউ স্টেডিয়ামে। উদ্বোধনী ম্যাচে যুক্তরাষ্ট্রের বোলারদের উড়িয়ে কানাডা স্কোরবোর্ডে জমা করে ১৯৪ রানের বড় সংগ্রহ। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মাটিতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের শুরুটাও হলো মনে রাখার মতোই নভোনীত ধালিওয়াল তুলে নিয়েছেন এবারের আসরের প্রথম ফিফটি। ৬১ রানের ইনিংসে ছিল ৬ চার আর ৩ ছক্কার মার। ১২৮ রানে তিনি ফিরে গেলেও নিকোলাস কির্তন ছিলেন অবিচল। ৩০ বলেই ফিফটি তুলে নেন। দলকে পৌঁছে দেন শক্ত অবস্থানে। যদিও ৫১ রানেই থামতে হয় তাকে।

Advertisement
Share.

Leave A Reply