fbpx

বিষাক্ত মদ সরবরাহকারী চক্রের ৭ জন গ্রেপ্তার

Pinterest LinkedIn Tumblr +
Advertisement

বিষাক্ত মদ পান করে একের পর মৃত্যুর খবর এসেছে গত কয়েক দিনের সংবাদমাধ্যমে। সম্প্রতি ঢাকায় ১৩ জন মৃত্যুবরণ করেন এর ফলে। ঢাকার বাইরে বগুড়ায় মারা যান ১৬ জনেরও বেশি মানুষ। এ পরিস্থিতিতে ঢাকায় পুলিশ এক নারীসহ ১৩ জন খুচরা বিষাক্ত মদ সরবরাহকারীকে শনাক্ত করেছে। তাদের মধ্যে ৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। প্রায় চার মাস ধরে এ চক্র ঢাকার বিভিন্ন স্থানে বিষাক্ত মদ সরবরাহ করে আসছিলেন বলে জানতে পেরেছেন পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের (গুলশান) কর্মকর্তারা।

সোমবার গোয়েন্দা বিভাগের (গুলশান) কর্মকর্তারা রাজধানীর তেজগাঁও ও ভাটারায় অভিযান চালিয়ে মনতোষ চন্দ্র অধিকারী ওরফে আকাশ (৩৫), রেদোয়ান উল্লাহ (৩৫), সাগর ব্যাপারী (২৭), নাসির আহমেদ ওরফে রুহুল (৪৮), জাহাঙ্গীর আলম (৪৫) ও সৈয়দ আল আমিন (৩০) নামের ছয়জনকে গ্রেপ্তার করে। এরপর বৃহস্পতিবার গাজীপুর জেলা পুলিশ গ্রেপ্তার করে জাহিদ মোল্লা নামের আরেকজনকে।

গুলশান বিভাগের উপকমিশনার মশিউর রহমান সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘চক্রটির তৈরি মদ বিভিন্ন ক্রেতার কাছে পৌঁছে দিতেন ১৩ জন খুচরা সরবরাহকারী। তারাই গাজীপুরে অবকাশ যাপনে যাওয়া দলটিকে রাজধানীর বনানীতে গত ২৮ জানুয়ারি বিষাক্ত মদ পৌঁছে দেন। এর বাইরে বারিধারা ডিওএইচএস, ভাটারা ও মোহাম্মদপুরেও এই সরবরাহকারীদের মাধ্যমেই মদ পৌঁছে দিয়েছিলেন চক্রের লোকজন। ওই এক দিনে তারা ৩৭ বোতল মদ সরবরাহ করেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘গ্রেপ্তারকৃত চক্রটি মদ বিক্রির সঙ্গে জড়িত প্রায় চার বছর ধরে। তবে তারা মদ বানাতে শুরু করে মাস চারেক আগে। বাজারে সরবরাহ ঘাটতির সুযোগ নেয় তারা। যারা নিয়মিত মদ পান করেন, তারা বিশ্বাস করেই এই সূত্রগুলোর ওপর নির্ভর করেছিলেন এবং বিনা দ্বিধায় মদ কেনেন।’

তবে মদে চক্রটি কী কী উপাদান মিশিয়েছে, জানতে পুলিশ আদালতের কাছে নমুনা পরীক্ষার আবেদন করেছে। অনুমতি পাওয়া গেলেই রাসায়নিক পরীক্ষা করার ব্যবস্থা করা হবে।

Advertisement
Share.

Leave A Reply