fbpx

বেগম জিয়ার বিদেশে চিকিৎসা নির্ভর করছে সরকারের সদিচ্ছার উপর: ফখরুল

Pinterest LinkedIn Tumblr +

খালেদা জিয়াকে বিদেশে চিকিৎসার জন্য নেওয়ার বিষয়টি নির্ভর করছে মেডিকেল বোর্ডের সিদ্ধান্ত ও সরকারের সদিচ্ছার ওপর, বললেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বুধবার (৫ মে) বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক পরিস্থিতির সর্বশেষ খবর জানানোর সময় দলটির মহাসচিব সংবাদমাধ্যমকে এ কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, বেগম জিয়ার শারীরিক অবস্থা এখন স্থিতিশীল। তাঁকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে নেওয়ার প্রয়োজন আছে কিনা তা নির্ভর করছে মেডিকেল বোর্ডের সিদ্ধান্তের উপর। আর তাঁর বিদেশভ্রমণ নির্ভর করছে সরকারের সদিচ্ছার উপর। তবে এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত বা আলোচনা হয়নি বলেও জানান তিনি।

একটি দায়িত্বশীল সূত্রের তথ্য অনুযায়ী, বেগম জিয়া বয়সের কারণে করোনা পরবর্তী কিছু জটিলতায় ভুগছেন। তাঁর ফুসফুস থেকে তিন ব্যাগ তরলজাতীয় পদার্থ বের করে তা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়েছে। সেখানে অন্য কোনো রোগের জীবাণু পাওয়া যায়নি। তবে তাঁর ডায়াবেটিস সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে থাকছে না, ওঠানামা করছে। তাছাড়া, অক্সিজেনের মাত্রাও কিছুটা কমে গেছে। চিকিৎসকরা বেগম জিয়াকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রেখেছেন বলে জানায় সূত্রটি।

এদিকে বেগম জিয়ার একজন চিকিৎসক আজ সংবাদমাধ্যমকে জানান, অক্সিজেনের পাশাপাশি খালেদা জিয়া স্বাভাবিকভাবে শ্বাসপ্রশ্বাস নিতে পারলেও কখনো কখনো অক্সিজেনের মাত্রা ৯০ বা তার নিচে নেমে যাচ্ছে। পরবর্তীতে অক্সিজেন দেওয়া হলে মাত্রা ৯৯ পর্যন্ত থাকে। তাঁকে দিনে দুই থেকে চার লিটার করে অক্সিজেন দেওয়া হচ্ছে বলেও জানান এই চিকিৎসক। তাদের আশা, অক্সিজেনের এই মাত্রা যদি অব্যাহত থাকে, তাহলে অল্প ক’দিনের মধ্যেই বেগম জিয়ার শ্বাসকষ্টের সমস্যা ভালো হয়ে যাবে।

এর আগে, করোনা আক্রান্ত বেগম জিয়ার শ্বাসকষ্ট বেড়ে যাওয়ার কারণে গত সোমবার (৩ মে) তাঁকে হাসপাতালের সিসিইউতে স্থানান্তর করা হয়। সেদিন রাতেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের সাথে বিএনপির চেয়াপারসনের শারীরিক অবস্থা জানাতে ফোনে কথা বলেন মির্জা ফখরুল। তারপর থেকেই বেগম জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশ নেওয়ার বিষয়ে শুরু হয় গুঞ্জন।

তবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল এ বিষয়ে সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, খালেদা জিয়াকে বিদেশে চিকিৎসার জন্য নিতে চান এরকম কোনো আবেদন তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে করা হয়নি।

Share.

Leave A Reply