fbpx
BBS_AD_BBSBAN
২২শে ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | ৯ই ফাল্গুন ১৪৩০ | পরীক্ষামূলক প্রকাশনা

মার্চ পর্যন্ত পেঁয়াজ রপ্তানি করবে না ভারত, প্রভাব পড়বে বাংলাদেশের বাজারে

Pinterest LinkedIn Tumblr +
Advertisement

২০২৪ সালের মার্চ পর্যন্ত পেঁয়াজ রপ্তানি নিষিদ্ধ করল ভারত। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জারি করা কর্তৃপক্ষের এ সংক্রান্ত নির্দেশনা অনুযায়ী পেঁয়াজ রপ্তানি নিষিদ্ধ হলো বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে বার্তাসংস্থা এএনআই।

ডিরেক্টরেট জেনারেল অব ফরেন ট্রেড (ডিজিএফটি) এক বিজ্ঞপ্তিতে বলেছে, তবে কোনো দেশের অনুরোধের ভিত্তিতে কেন্দ্রীয় সরকারের অনুমতি সাপেক্ষে পেঁয়াজ রপ্তানি করা যাবে।

ভারতে বর্তমানে খুচরা বাজারে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে কেজি প্রতি ৬০ টাকায়। ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত দেশের বাজারে সরবরাহ উন্নত করার পাশাপাশি দাম নিয়ন্ত্রণে গেল আগস্টে ভারত সরকার পেঁয়াজ রপ্তানিতে ৪০ শতাংশ শুল্ক আরোপ করে।
তবে কেন্দ্রীয় সরকার শর্তসাপেক্ষে বেঙ্গালুরু রোজ পেঁয়াজ রপ্তানিতে শুল্কছাড় দিয়েছিল। এ জাতের পেঁয়াজ কর্ণাটকের বেঙ্গালুরুতে উৎপাদিত হয়। ২০১৫ সালে এটি জি আই পণ্যের স্বীকৃতি পায়।

পেঁয়াজের বাড়তি দামের মুখোমুখি হয়ে কেন্দ্রীয় সরকার বাফার স্টক থেকে পেঁয়াজ ছাড়ছে। এর আগে সরকার ২০২২-২৩ মৌসুমে ৩ লাখ টন পেঁয়াজ বাফার স্টক হিসেবে রাখার সিদ্ধান্ত নেয়। ২০২২-২৩ সালে সরকার ২ দশমিক ৫১ লাখ টন পেঁয়াজ বাফার স্টক হিসেবে রাখতে সমর্থ হয়।

এপ্রিল-জুন মাসে কাটা রবি পেঁয়াজ ভারতের মোট পেঁয়াজ উৎপাদনের ৬৫ শতাংশ, যা অক্টোবর-নভেম্বরে খরিপ ফসল কাটা না হওয়া পর্যন্ত ভোক্তাদের চাহিদা পূরণ করে।

এই পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধে বাংলাদেশের পেঁয়াজের দামে বর রকমের প্রভাব পড়বে। বর্তমানে ভারতীয় পেঁয়াজ বাংলাদেশের বাজারে বিক্রি হচ্ছে ১১০-১২০ টাকায়। যা আরও বাড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

Advertisement
Share.

Leave A Reply