fbpx

মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে হাঁটা কর্মসূচি

Pinterest LinkedIn Tumblr +
Advertisement

স্বাধীনতা দিবসকে সামনে রেখে ব্যতিক্রমী এক আয়োজন করেছে ‘আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান’ সংগঠন। এ আয়োজনে থাকছে চট্টগ্রামের মিরসরাই-সীতাকুন্ড সীমান্ত থেকে মিরসরাইয়ের শুভপুর ব্রিজ পর্যস্ত বিশেষ হাঁটা কর্মসূচি। যেখানে একক ‘ওয়াক-অ্যা-থন’-এ অংশগ্রহণ করবেন মিরসরাইয়ের কৃতি সন্তান, সাবেক মন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি’র সুযোগ্য পুত্র তরুণ রাজনীতিবিদ মাহবুব রহমান রুহেল। এই উদ্যোগে প্রায় ৭ ঘন্টায় ৩৪ কিলোমিটার পথ হাঁটবেন তিনি। ২২ মার্চ ভোর ৫ টায় এই হাঁটা কর্মসূচি শুরু করে দুপুর ১২ টা নাগাদ শেষ হবে।

মূলত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য তহবিল সংগ্রহের লক্ষ্যে এই কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছে বলে জানান মাহবুব রহমান রুহেল।

তিনি বলেন, এ কর্মসূচিতে অন্যরাও অংশগ্রহণ করতে পারবেন। প্রতি কিলোমিটারে নির্দিষ্ট পরিমান অনুদান দিয়ে যে কেউ এতে অংশগ্রহণ করতে পারেন। এখান থেকে সংগৃহিত তহবিল মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে ব্যয় করা হবে। তাই এ আয়োজনে সবাইকে অংশগ্রহণ করার জন্য উদাত্ত আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

উল্লেখ্য, মিরসরাইয়ে অন্যান্য উপজেলার চেয়ে সবচেয়ে বেশি মুক্তিযোদ্ধা রয়েছে। শুভপুর ব্রিজ থেকে প্রথম প্রতিরোধ শুরু হয়, যেখানে বীর মুক্তিযোদ্ধা ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি ব্রিজটি ধ্বংস করে পাকিস্তানি সামরিক বাহিনীকে স্তব্ধ করে দিয়েছিলেন। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এই গুরুত্বপূর্ণ ব্রিজ ধ্বংস করার অপারেশনটি চট্টগ্রামের মতো গুরুত্বপূর্ণ জনপদকে পাক হানাদার বাহিনীর হাত থেকে রক্ষায় ভূমিকা রেখেছিল। বেঁচে গিয়েছিল লাখ লাখ সাধারণ মানুষের জীবন।

মহান মুক্তিযুদ্ধে মিরসরাইয়ের এই গৌরবময় অধ্যায়কে স্মরণীয় করে রাখা এবং সেই সময়কার মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানার্থে এই দীর্ঘ পদযাত্রার আয়োজন।

মাহবুব রহমান রুহেল বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধারা জাতির সূর্যসন্তান। তাদের মহান আত্মত্যাগে আমরা একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশে বাস করার সুযোগ পেয়েছি। এই অপরিসীম আত্মত্যাগের বিনিময় আমরা দিতে পারবো না। তবে তাদের অবদানকে স্মরণ করা এবং যথাযথ মর্যাদা দেয়া আমাদের দায়িত্ব। প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ছড়িয়ে দিতে হবে আমাদের। আসুন আমরা পরিবর্তনের আওয়াজ তুলি, মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে পাওয়া এই দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাই।’

Advertisement
Share.

Leave A Reply