fbpx

রোজায় নিজের রাগকে নিয়ন্ত্রণ করবেন যেভাবে

Pinterest LinkedIn Tumblr +

এসেছে সিয়াম সাধনার মাস। সারা বিশ্বজুড়ে শুরু হয়েছে মুসলীমদের পবিত্র মাহে রমজান।  টানা একমাস রোজার শেষে আসে কাঙ্খিত ঈদ। রমজানের এই মাসকে বলা হয় সংযমের মাস। প্রতি বছর কোটি কোটি মুসলমান এই মাসে রোজা রাখেন একটা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত।

কয়েক বছর ধরে উত্তর গোলার্ধের দেশগুলোতে রোজা পড়েছে গ্রীষ্মকালে। ফলে এসব দেশের মুসলিমদের রোজা রাখতে হচ্ছে গরমের মধ্যে, অনেকটা দীর্ঘসময় ধরে।

যদিও এটা ধর্ম সাধনার মাস, কিন্তু একটা দীর্ঘ সময় পর্যন্ত যেহেতু না খেয়ে থাকতে হয়, পেটে ক্ষুধা থাকে, তাই মানুষ খুব সহজেই এই সময় রেগে যায় বা তার মেজাজ খিটখিটে হয়ে যায়। হয়তো অযথাই আপনি কারোর উপর চড়াও হন। এতে সম্পর্কের অবনতি হয়। আজ বিবিএস বাংলার পাঠকদের জন্য থাকছে রমজান মাসে কিভাবে রাগ নিয়ন্ত্রণে রাখবেন।

রমজানে মেজাজ বা রাগ নিয়ন্ত্রণে রাখার উপায়

হঠাৎ মন-মেজাজের পরিবর্তন, আকস্মিক রাগ বা আবেগের বহিঃপ্রকাশ, মানুষের স্বাভাবিক আচরণের মধ্যেই পড়ে। সব দিন তো আর সবার সমান যায় না। হয়তো পারিবারিক বা কর্মক্ষেত্রে কোনো সমস্যা হচ্ছে বা ভেতরে ভেতরে কোনো উদ্বেগ-অনিশ্চয়তায় ভুগছেন, যা আপনার অস্বাভাবিক আচরণে প্রকাশ পায়। কিন্তু আপনি খেয়াল করেলে বুঝবেন, রমজানের মাসে রোজা রেখে আপনি একটু বেশিই রেগে যাচ্ছেন। নিজের মন-মেজাজ নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে। এরও আছে সমাধান। আপনি চাইলেই নিজের মেজাজ বা রাগ নিয়ন্ত্রণ করেতে পারেন।

১। যতটা পারেন, নিজেকে বিশ্রামে রাখুন

২। এই সময় খুব বেশি আড্ডা দেওয়া থেকে নিজেকে বিরত রাখুন

৩। নিয়ম করে মেডিটেশন বা যোগ ব্যায়াম করুন

৪। ইফতার এবং সেহরিতে পানি, ফলের রস বা পানি জাতীয় খাবার বেশি রাখুন

৫। রোজা রেখে খুব দরকার না হলে, কথা কম বলুন। বেশি কথা বললে আপনার এনার্জি লস হবে। এতে আপনার মেজাজ খিটখিটে হতে পারে

৬। সবসময় ইতিবাচক চিন্তা করুন

৭। হাসিখুশি থাকার চেষ্টা করুন

৮। পরিবারে সাথে সময় কাটান। চেষ্টা করুন ইফতার এবং সেহরি পরিবারের সাথে করতে। এতে মন ভালো থাকবে। আর মন ভালো তো শরীর ভালো। শরীর ভালো তো সবকিছু ভালো।

Share.

Leave A Reply