fbpx

লড়াই করেই হারলো স্কটল্যান্ড

Pinterest LinkedIn Tumblr +

শেষ তিন ওভারে ৩৯ রান তুললেন মাইকেল লিস্ক ও ক্রিস গ্রিভস। তবে এতো ঝড় তুলেও শেষমেষ রক্ষা হলো না। হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করে নিউজিল্যান্ডের সাথে ১৬ রানের ব্যবধানে ম্যাচ হেরে গিয়েছে স্কটল্যান্ড। ১৭৩ রানের লক্ষ্যে ২০ ওভার শেষে নিউজিল্যান্ড তুলেছে ৫ উইকেটে ১৫৬।

টসে জিতে ফিল্ডিং নিয়ে স্কটল্যান্ডের বোলাররা শুরুটা খারাপ করেননি। পাওয়ারপ্লে শেষ হওয়ার আগের ওভারে দুর্দান্ত বল করতে থাকা সাফিয়ান শরীফ প্যাভিলিয়নে ফিরিয়েছেন ওপেনার ড্যারিল মিচেল এবং অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনকে।

গাপটিল ও ফিলিপস -দু’জনের ব্যাটে ভর করেই রানের পাহাড়ে কিউইরা

এক ওভারেই দুই উইকেট হারানো কিউইরা ম্যাচে ফেরে মার্টিন গাপটিলের ব্যাটে। নিজের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়েছেন গাপটিল। গ্লেন ফিলিপসকে নিয়ে গড়েছেন প্রতিরোধ, দিয়েছেন পাল্টা জবাব। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে তিন হাজার রানের মালিক ছিলেন শুধুমাত্র ভিরাট কোহলি; এলিট এই ক্লাবে প্রবেশ করতে হলে কিউই ওপেনারের প্রয়োজন ছিল ২৪ রান। ছক্কা হাকিয়ে পূরণ করেছেন তিন হাজার রান। তবে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে নিজের তৃতীয় সেঞ্চুরিটি করতে পারেননি। ৫৬ বলে করেছেন ৯৩ রান; ব্রাড হুয়েলকে লং অন দিয়ে তুলে মারতে গিয়ে ক্যাচ দিয়েছেন ক্যালাম ম্যাকলিয়ডের হাতে। মার্টিন গাপটিল-গ্লেন ফিলিপস মিলে চতুর্থ উইকেট জুটিতে যোগ করেছেন ১০৫ রান; নির্ধারিত ২০ ওভারে নিউজিল্যান্ডের সংগ্রহটাও তাই ১৭২।  স্কটিশদের হয়ে ২টি করে উইকেট নিয়েছেন সাফিয়ান শরীফ ও ব্র্যাড হুইল।

১৭৩ রানের লক্ষ্যে স্কটিশদের শুরুটাও হয় দুর্দান্ত। পাওয়ারপ্লের ৬ ওভারে আছে ৪৮ রান, স্কটল্যান্ড হারায় শুধু অধিনায়ক কাইল কোয়েতজারের উইকেট। ষষ্ঠ ওভারে পেসার অ্যাডাম মিলনেকে টানা ৫ বলে ৫টি বাউন্ডারি হাঁকান ম্যাথিউ ক্রস; অথচ বেচারা মিলনে কিনা নিজের আগের ওভারটিই করেছিলেন মেডেন!

অষ্টম ওভারে ইশ সোধিকেও আক্রমণ করতে গিয়েছিলেন জর্জ মানজি। তবে দুটো ছক্কা হাঁকানোর পর তৃতীয় ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে হয়েছেন লং অনে ক্যাচ, ফিরেছেন ২২ রান করে।

মানজির আউটের পর স্কটিশদের রানের চাকায় বেড়ি পরায় কিউই বোলাররা। পরের চার ওভারে রান আসে মাত্র ১৩। ক্রস আউট হন ২৭ রান করে। ষোড়শ ও সপ্তদশ ওভারে আউট হন ম্যাকলিয়ড ও বেরিংটন। এরপর মাইকেল লিস্ক ও ক্রিস গ্রিভসের ব্যাটে শুধু জয়ের ব্যবধানই কমেছে।

Share.

Leave A Reply