fbpx

শারুন চৌধুরীসহ সব দোষীর শাস্তি চান; মোর্শেদের স্ত্রীর

Pinterest LinkedIn Tumblr +

চট্টগ্রামের ব্যাংকার মোর্শেদ চৌধুরীর আত্মহত্যা করার পিছনে চট্টগ্রাম-১২ আসনের সাংসদ ও হুইপ সামশুল হক চৌধুরীর ছেলে শারুন চৌধুরীকে দায়ী করছেন ব্যাংকার মোর্শেদ চৌধুরীর স্ত্রী ও স্বজনরা। পাশাপাশি অন্য সব অভিযুক্তকে বিচারের আওতায় আনার দাবিও জানিয়েছেন তারা।

২৪ এপ্রিল শনিবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে তারা এ দাবি জানান।

মোর্শেদ চৌধুরীর স্ত্রী ইশরাত জাহান চৌধুরী জানান, আমার স্বামীর আত্মহত্যার প্রায় আড়াই সপ্তাহ পার হয়ে গেলেও কোনো এক অদৃশ্য কারণে সম্পূর্ণ তথ্য প্রমাণ থাকা সত্ত্বেও অপরাধী ও অভিযুক্তরা এখনো ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছে। এর পাশাপাশি তারা বিভিন্নভাবে আমাকে ও আমার পরিবারকে চাপের মুখে রেখেছে।

তিনি বলেন, যেকোনো মুহূর্তে শারুন চৌধুরী গংয়ের দ্বারা জীবন ও সম্পদহানির আশঙ্কার আছি আমারা।

গত ৭ এপ্রিল ব্যাংকার আবুল মোরশেদ চৌধুরী আত্মহত্যা করেন। মৃত্যুর আগে তিনি চার পৃষ্ঠার একটি সুইসাইড নোট রেখে যান। এর একটি অংশে লেখা ছিল, ‘আল্লাহ আমাকে রক্ষা করবে, আরেকটু দেখি, আরেকটু দেখি করতে করতে দেনার গর্তটা অনেক বেশি বড় হয়ে যাচ্ছে। যারা কোনো টাকাই পেত না, তাদের দিতে গিয়ে এখন সত্যিকারের দেনায় জর্জরিত। বেঁচে থাকলে এই দেনা আরও বাড়বে। তা ছাড়া পরিচিতগুলোই এখন চেপে ধরেছে বেশি। এই লোড আমি আর নিতে পারছি না, সত্যি পারছি না।’

মোরশেদ চৌধুরীর মৃত্যুর পরদিন ইশরাত জাহান চৌধুরী বাদী হয়ে চারজনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাতনামা আরও সাত-আটজনকে আসামি করে মামলা করেন। আসামিরা হলেন চট্টগ্রাম চেম্বারের সাবেক পরিচালক জাবেদ ইকবাল, তাঁর ভাই পারভেজ ইকবাল, নাঈম উদ্দীন সাকিব ও যুবলীগ নেতা শহীদু হক চৌধুরী রাসেল। কিন্তু মামলায় প্রথমে শারুন চৌধুরীর নাম ভয়ে উল্লেখ করেননি বলে জানান ইশরাত জাহান চৌধুরী। 

এই ঘটনায় শারুন চৌধুরীর আবির্ভাব ২০১৯ সালের মে মাসে বলে উল্লেখ করেন ইশরাত জাহান। মে মাসের একদিন শারুন তাঁর স্বামীকে (মোরশেদ চৌধুরী) ফোন করে রেডিসন হোটেলে দেখা করতে বলেন। মোরশেদ এতে আপত্তি করেন। তিনি বলেন, তাঁর (শারুন চৌধুরীর) সঙ্গে কোনো ব্যবসায়িক লেনদেন নেই। তারপরও কেন তিনি দেখা করতে বলছেন। জবাবে শারুন চৌধুরী বলেন, ‘লেনদেন নেই, এখন হবে।’ এর কিছুক্ষণ পরেই শারুন আরও ১০-১২ জন যুবককে নিয়ে তাঁদের বাসায় যান। ভিডিও ফুটেজে শারুনকে দেখা না গেলেও, মোরশেদের ফুফাতো ভাই পারভেজকে দেখা যায়। তাঁদের ভবনের নিরাপত্তারক্ষীদের আটকে রেখে ওই যুবকেরা বলে, গাড়ির ভেতরে শারুন চৌধুরী বসে আছেন। ওই সময় মোরশেদ চৌধুরী বাসায় ছিলেন না। তিনি তাঁর আত্মীয় আজম খানের বাসায় ছিলেন। আজম খানই লেনদেনের বিষয়টি দেখভাল করছিলেন। কিছুক্ষণ পরে শারুন চৌধুরীও হাজির হন আজম খানের বাসায়।

সংবাদ সম্মেলনে ইশরাত জাহান চৌধুরী যে পুলিশ কর্মকর্তার সম্পৃক্ততার কথা বলেন, তাঁর নাম বিজয় বসাক। ওই সময় তিনি চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ উত্তরের উপকমিশনার ছিলেন।

গণমাধ্যমকর্মীদের উদ্দেশে ইশরাত চৌধুরী বলেন, আমার স্বামী মোর্শেদ চৌধুরীর আত্মহত্যার নেপথ্যে থাকা শারুন চৌধুরীকে বাঁচাতেই কি আসামিদের ধরা হচ্ছে না? আমি অপরাধীদের বিচারের আওতায় আনতে প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

Share.

Leave A Reply