fbpx

‘সিনেমাটি দেখলে ভালো লাগবে, না দেখলে হতাশ হব না’

Pinterest LinkedIn Tumblr +

১১ ডিসেম্বর মুক্তি পাচ্ছে চয়নিকা চৌধুরীর প্রথম চলচ্চিত্র ‘বিশ্বসুন্দরী’। একদিকে যেমন বাড়ছে করোনা রোগীর সংখ্যা তেমনি বাড়ছে শীত। এই যখন দেশের পরিস্থিতি, এমন মুহূর্তে
নিজের প্রথম ছবির মুক্তি নিয়ে কী ভাবছেন এই নির্মাতা? সিনেমা ও অন্যান্য প্রসঙ্গে বিবিএস বাংলার সঙ্গে ১ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় কথা বলেছেন তিনি।

বিবিএস বাংলা : কেমন আছেন?
চয়নিকা চৌধুরী : খুব দৌড়ের উপর আছি, সামনে সিনেমা রিলিজ।
বিবিএস বাংলা : আপনি যদি ব্যস্ত না থাকেন একটু কথা বলতে চাই।
চয়নিকা : হ্যাঁ কিছুটা ব্যস্ত , বলুন না।

বিবিএস বাংলা : জানি আপনি খুব ব্যস্ত সিনেমা নিয়ে, কতগুলো হলে ছবিটি মুক্তি দেওয়ার প্লান করছেন?

চয়নিকা চৌধুরী : এখনো আসলে এটা ঠিক করা হয়নি। মাত্রই তো গতকাল সিদ্ধান্ত নিলাম মুভিটা রিলিজের । ২৪ ঘণ্টা হয়েছে মাত্র। তবে হ্যাঁ, ঢাকা এবং ঢাকার বাইরের হলে মুক্তি দেওয়া হবে। যে হলগুলো খোলা আছে।

বিবিএস বাংলা: করোনার সময়ে আপনি সিনেমা মুক্তির সিদ্ধান্ত নিলেন। এই সময়ে আপনি দর্শকের কাছ থেকে কেমন সাড়া আশা করছেন?

চয়নিকা চৌধুরী: দর্শক যদি একসাথে ট্রেনে যেতে পারে, কক্সবাজার ঘুরতে যেতে পারে, একসাথে বাসে যেতে পারে, বিভিন্ন জায়গায় একসঙ্গে বসে আড্ডা দিতে পারে, খেতে পারে তাহলে দর্শক সচেতন হয়ে কেন সিনেমা হলে যেতে পারবে না? কারণ, সিনেমা হলটা অনেক বেশি হাইজেনিক। সবচেয়ে বড় কথা, আমার প্রডিউসার ভাবছেন বাংলাদেশের হল মালিকদের বাঁচিয়ে রাখতে হবে। সেক্ষেত্রে প্রডিউসারই যদি এগিয়ে না আসে তাহলে সিনেমা হল শেষ হয়ে যাবে, সিনেমা শিল্প বাঁচবে না। আর একটা সিনেমা হলে গিয়ে দেখার যে মজা, তা কখনোই বাড়িতে বসে হাতের মুঠোর মোবাইলে দেখে পাওয়া যাবে না। হাজার হাজার মানুষ যারা বাইরে খেতে যাচ্ছে তারা যদি মনে করে তাহলে সিনেমাও দেখতে যাবে।

‘সিনেমাটি দেখলে ভালো লাগবে, না দেখলে হতাশ হব না’

‘বিশ্বসুন্দরী’ সিনেমায় সিয়াম ও পরীমণি। ছবি: সংগৃহীত

বিবিএস বাংলা : আপনার কি মনে হয় দর্শক প্রোপার হাইজেন মেইনটেইন করবে?

চয়নিকা চৌধুরী : আপনি শুনেছেন কিনা, আমার প্রডিউসার বলেছে যারা স্বাস্থ্যবিধি মেনে সিনেমা চালাবে তাদেরকেই শুধুমাত্র সিনেমা দেওয়া হবে। নিশচয়ই মানা হবে বলেই দেওয়া হবে। আমি তো ‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’ সিনেমাটি দেখতে গিয়েছিলাম হলে। স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে তো। পুরো হাউস্ফুল ছিল দর্শক।

বিবিএস বাংলা: এটা আপনার প্রথম বড় পর্দার কাজ। প্রথম পরিচালিত সিনেমা। চ্যালেঞ্জ মনে হচ্ছে কোনো?

চয়নিকা চৌধুরী: হ্যাঁ, এটা আমার পরিচালিত প্রথম সিনেমা। আর আপনি চ্যালেঞ্জ এর কথা বলছেন কেন? চ্যালেঞ্জ নেওয়ার কোনো প্রশ্নই আসে না। আমি এতো বড় কোনো পরিচালক নই। আমি খুবই ছোট মানের পরিচালক। সিনেমাটি দেখলে অবশ্যই ভালো লাগবে। কিন্তু, না দেখলে হতাশ হব না। সামনে আরো কাজ করব। মাত্র তো শুরু।

‘সিনেমাটি দেখলে ভালো লাগবে, না দেখলে হতাশ হব না’

সিনেমার একটি দৃশ্যে পরী ও সিয়াম। ছবি : সংগৃহীত

বিবিএস বাংলা: এই সময়ে প্রচার-প্রচারণার ক্ষেত্রে কী ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছেন?

চয়নিকা চৌধুরী : এ বিষয়টা আমার প্রডিউসার দেখছেন।

বিবিএস বাংলা : আপনাকে অনেক ধন্যবাদ আমাদের সময় দেওয়ার জন্য। আপনার সিনেমার জন্য শুভকামনা। ভালো থাকবেন।

চয়নিকা চৌধুরী : আপনিও ভালো থাকবেন। আশা করি হলে গিয়ে সিনেমাটি দেখবেন।
বিবিএস বাংলা : অবশ্যই।

Share.

Leave A Reply