fbpx

সুবীর নন্দীর প্রয়াণ দিবস আজ

Pinterest LinkedIn Tumblr +

‘আমি বৃষ্টির কাছ থেকে’, ‘ও আমার উড়াল পঙ্খী রে’, ‘কত যে তোমাকে বেসেছি ভালো’ গানগুলোর কথা মনে হলেই কানে বেজে ওঠে সুবীর নন্দীর সেই চিরচেনা সুর। বলিষ্ঠ ব্যক্তিত্বের আধিকারী এই মানুষটি ছিলেন সংগীত অঙ্গনের আইকন। ২০১৯ সালে আজকের এই দিনে (৭ মে) পৃথিবী থেকে বিদায় নেন এই বরেণ্য সংগীতশিল্পী।

সুবীর নন্দীর প্রথম গানের অ্যালবাম ১৯৮১ সালে প্রকাশিত হয়। এছাড়া তার অন্যান্য অ্যালবামগুলো হল প্রেম বলে কিছু নেই, ভালোবাসা কখনো মরে না, সুরের ভুবনে, গানের সুরে আমায় পাবে প্রভৃতি।

১৯৬৩ সালে তৃতীয় শ্রেণী থেকেই তিনি গান করতেন। এরপর ১৯৬৭ সালে তিনি সিলেট বেতারে গান করেন। তার গানের ওস্তাদ ছিলেন গুরু বাবর আলী খান। লোকগানে ছিলেন বিদিত লাল দাশ। সুবীর নন্দী গানের জগতে আসেন ১৯৭০ সালে ঢাকা রেডিওতে প্রথম রেকর্ডিং এর মধ্য দিয়ে। প্রথম গান ‘যদি কেউ ধূপ জ্বেলে দেয়’ -এর গীত রচনা করেন মোহাম্মদ মুজাক্কের এবং সুরারোপ করেন ওস্তাদ মীর কাসেম। ৪০ বছরের দীর্ঘ ক্যারিয়ারে গেয়েছেন আড়াই হাজারেরও বেশি গান। বেতার থেকে টেলিভিশন, তারপর চলচ্চিত্রে গেয়েছেন অসংখ্য জনপ্রিয় গান।

সুবীর নন্দী মূলত চলচ্চিত্রের গানে কণ্ঠ দিয়ে খ্যাতি অর্জন করেন। তিনি মহানায়ক (১৯৮৪), শুভদা (১৯৮৬), শ্রাবণ মেঘের দিন (১৯৯৯), মেঘের পরে মেঘ (২০০৪) ও মহুয়া সুন্দরী (২০১৫) চলচ্চিত্রের গানে কণ্ঠ দিয়েছেন তিনি।

এই শিল্পী দীর্ঘদিন ফুসফুস, কিডনি ও হৃদরোগে ভুগে ২০১৯ সালের ৭ই মে ৬৫ বছর বয়সে সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন।

চলচ্চিত্রের সঙ্গীতে তার অবদানের জন্য বাংলাদেশ সরকার তাকে পাঁচবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রদান করেন। এমনকি তিনি ২০১৯ সালে দেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা একুশে পদকে ভূষিত হন।

সুবীর নন্দীর গাওয়া উল্লেখযোগ্য গানগুলো হলো—কেন ভালোবাসা হারিয়ে যায়, চাঁদে কলঙ্ক আছে যেমন, বধূ তোমার আমার এই যে পিরিতি, একটা ছিল সোনার কইন্যা, আমি বৃষ্টির কাছ থেকে, দিন যায় কথা থাকে, আশা ছিল মনে মনে প্রভৃতি।

Share.

Leave A Reply