fbpx

সৈয়দ মহিদুল ইসলাম স্মরণ উৎসব উদ্বোধন

Pinterest LinkedIn Tumblr +

স্বাধীনতা-উত্তর বাংলাদেশের মঞ্চনাটকে প্রথম সারির একজন সৈয়দ মহিদুল ইসলাম। ১৯৭৬ সালে ‘ব্যতিক্রম’ নামে কলকাতায় প্রতিষ্ঠা করেন নিজের নাটকের দল।

১৯৭৮ সাল থেকে দলটি কাজ শুরু করে ঢাকায়। তাকে স্মরণ করে প্রতিবছরের মতো এ বছরও ব্যতিক্রম নাট্যগোষ্ঠী আয়োজন করতে যাচ্ছে ‘সৈয়দ মহিদুল ইসলাম স্মরণ উৎসব-২০২১’। ৫ নভেম্বর থেকে ১২ নভেম্বর পর্যন্ত শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা ও পরীক্ষণ থিয়েটার হলে হবে এ আয়োজন।

আয়োজনটি এবার ৪৫ বছরে পা দিল। ‘ব্যতিক্রম’ ছাড়াও দেশের আরও সাতটি দল নাটক প্রদর্শনীতে অংশ নেবে। উদ্বোধনী দিনে মঞ্চায়ন হবে থিয়েটার আর্ট ইউনিটের নাটক ‘কোট মার্শাল’। এছাড়াও উৎসবে মঞ্চায়ণ করবে নাট্যচক্র ‘একা এক নারী’, ব্যতিক্রম নাট্যদল ‘পাখি’, সংলাপ গ্রুপ থিয়েটার ‘বোধ’, শব্দ নাট্যচর্চা কেন্দ্র ‘চম্পাবতী’, চট্টগ্রামের নান্দিমুখ ‘তবুও মানুষ’, প্রাঙ্গণেমোর ‘কনডেম সেল’ ও লোক নাট্যদল ‘সোনাই মাধব’।

এমনকি আয়োজনে সম্মাননা প্রদান করা হবে নাট্যব্যক্তিত্বদের। নাট্যব্যক্তিত্ব সৈয়দ মহিদুল ইসলামের নামে প্রবর্তিত নাট্যপদক পাচ্ছেন বিশিষ্ট নাট্যব্যক্তিত্ব তারিক আনাম খান।

মঞ্চবন্ধু ও যুগল সম্মাননাও থাকছে এখানে। মঞ্চবন্ধুপদক পাচ্ছেন নাট্যকার, নির্দেশক ও  অভিনয়শিল্পী অলোক  বসু, নাট্যকার, নির্দেশক ও অভিনেতা সেলিম মাহবুব, অভিনেতা, শব্দ ও সংগীত পরিকল্পক শাহাদাৎ হোসেন, অভিনেতা ও আবৃত্তিশিল্পী তানভীন সুইটি, মঞ্চশিল্পী আহাম্মেদ গিয়াস। অভিনেতা, নির্দেশক ও সংগঠক যুগল সম্মাননা পাচ্ছেন মুনীর হেলাল ও সাবিরা সুলতানা বীণা, ওমর সানী ও মৌসুমী, মোহাম্মদ জসীম উদ্দিন ও এনামতারা সাকী, বাকার বকুল ও রুনা কাঞ্চন।

দিল্লির ন্যাশনাল স্কুল অব ড্রামা (এনএসডি) থেকে ১৯৭৭ সালে নাট্যতত্ত্বে স্নাতকোত্তর করে দেশে আসেন সৈয়দ মহিদুল ইসলাম।

তিনি ঢাকায় ১৯৮৪ সালে চালু করেছিলেন ‘স্কুল অব অ্যাকটিং’। অভিনয় শিখে ঢাকার ছেলেমেয়েরা অভিনয়শিল্পী হবে, এই ছিল তাঁর স্বপ্ন। তিনি নিজে লিখতেন, বিদেশি নাটক অনুবাদ করতেন, নির্দেশনা দিতেন, স্টেজ সাজাতেন। অভিনয় করেছেন টিভি নাটকে, চলচ্চিত্রে। এমনকি চলচ্চিত্র নির্মাণও করেছেন তিনি। ‘আমি কার’ও ‘স্বপ্নযাত্রা’ তার নির্মিত দুটি চলচ্চিত্র।

Share.

Leave A Reply