fbpx
BBS_AD_BBSBAN
৩০শে নভেম্বর ২০২২ | ১৫ই অগ্রহায়ণ ১৪২৯ | পরীক্ষামূলক প্রকাশনা

সীমান্ত হত্যা তদন্তে নিরপেক্ষ কমিশন গঠনের আহ্বান : এইচআরডব্লিউ

Pinterest LinkedIn Tumblr +
Advertisement

সীমান্ত হত্যার অভিযোগ তদন্ত করার জন্য ভারত সরকারের একটি নিরপেক্ষ কমিশন গঠন করা উচিত বলে জানিয়েছে মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লিউ)।

ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) বিরুদ্ধে সীমান্ত হত্যার অভিযোগ উঠায় মঙ্গলবার (৯ ফেব্রুয়ারি) এক বিবৃতিতে সংস্থাটি এ কথা জানায়। এমনকি, বিএসএফসহ নিরাপত্তা বাহিনীকে আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহারেও জাতিসংঘের নীতিমালা মেনে চলতে ভারত সরকারের আদেশ জারি করা উচিত বলেও বিবৃতিতে উল্লেখ করেছে আন্তর্জাতিক এই সংস্থাটি।

এইচআরডব্লিউ’র বিবৃতিতে আরো বলা হয়েছে, যেসব বিএসএফ সদস্যরা মানবাধিকার আইন লঙ্ঘনের সাথে জড়িত, তাদের বিচারের ব্যবস্থা করা উচিত। তাছাড়া, বাংলাদেশি ও ভারতীয় নাগরিকদের উপর নির্যাতন করলে সেক্ষেত্রেও বিএসএফের বিরুদ্ধে অভিযোগ করতে হবে। সীমান্তে সব ধরণের মৃত্যুর ঘটনা তদন্তের জন্য জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের যে নির্দেশনা দেয়া আছে, সেই নিয়মগুলো বিএসএফের উপরও প্রয়োগ করতে হবে। এমনকি মানবাধিকার লঙ্ঘনকারী বিএসএফ সদস্যদের শান্তিরক্ষার দায়িত্ব থেকেও বাদ দেয়া উচিত বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে বিবিসি’র এক প্রতিেবদনে বলা হয়েছে, ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর হাতে গত ১০ বছরে ৩৩৪ জন বাংলাদেশি নিহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এরমধ্যে, ২০২০ সালেই হত্যা করা হয়েছে ৫১ জনকে।

২০১১ সাল থেকে এখন পর্যন্ত বিএসএফের হাতে ১০৫টি হত্যার তদন্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে ভারতীয় তদন্ত সংস্থা ‘মাসুম’। তারা এমনটাও বলেছে, হত্যার এই সংখ্যা সঠিক নয়। তা আরো বেশি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এইচআরডব্লিউ’র প্রতিবেদনে আরো উল্লেখ করা হয়েছে, বাংলাদেশের সাথে ভারতের ২০২০ সালে সীমান্ত হত্যা নিয়ে আলোচনার সময় ভারত সরকার সীমান্ত হত্যা বন্ধের আশ্বাস দিয়েছিল। সে সময় ভারত সরকার তাদের নিরাপত্তা বাহিনীকে আরো সংযমী হতে ও বেআইনীভাবে হত্যা বন্ধেরও নির্দেশ দিয়েছিল।

Advertisement
Share.

Leave A Reply