fbpx

কোভিড থেকে সেরে উঠে দ্রুত ক্লান্তি কাটাবেন যেভাবে

Pinterest LinkedIn Tumblr +

দিন দিন কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলছে। নতুন নতুন উপসর্গ দেখা যাচ্ছে আক্রান্তদের মধ্যে। কোভিড আক্রান্তদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি যে উপসর্গগুলো দেখা যায়, তা হল জ্বর, কাশি এবং ক্লান্তি। তবে সুস্থ হওয়ার পর অন্যান্য উপসর্গ ধীরে ধীরে মিলিয়ে গেলেও ক্লান্তি রয়ে যাচ্ছে অনেকটা সময় পর্যন্ত। কোভিড থেকে সেরে উঠে  অনেকেই জানিয়েছেন বেশি ধকল নেওয়া যাচ্ছে না, একটুতেই হাঁপিয়ে উঠছেন তারা। এই ক্লান্তি কাটিয়ে উঠতে কারও সময় লাগছে এক মাস, কারও আবার লাগছে ছয় মাস। অনেকে আবার বলছে ছয় মাস পেরিয়ে গেলেও আগের উদ্যোম তারা এখনও ফিরে পাননি। তবে কোভিড থেকে সেরে উঠার পর  কয়েকটি জিনিস খেয়াল রাখলে একটু হলেও ক্লান্তি কাটিয়ে উঠতে পারবেন আপনি। আজ বিবিএস বাংলার পাঠকদের জন্য থাকছে, কোন বিষয়গুলো মেনে চললে এ সময় আপনি ক্লান্তি কাটিয়ে দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবেন।

১। অনেকে ঘরের মধ্যে দুই পা হাঁটলেও হাঁপিয়ে যাচ্ছেন। আর সিঁড়ি ভঙতে হলে তো কথাই নেই। আপনি যদি দ্রুত সুস্থ হতে চান, তাহলে ব্যায়ামের কোনো বিকল্প নেই। খুব ভারী ব্যায়ামের দরকার নেই এ সময়। ধীরে ধীরে হাঁটা, এক জায়গায় দাঁড়িয়ে হাত-পা ঘোরানো, চেয়ার বসে পায়ের ব্যায়াম করা, নিঃশ্বাসের ব্যায়াম- এগুলো করলেই যথেষ্ট। আর এই ব্যায়ামগুলো আপনাকে দ্রুত সুস্থ হতে সাহায্য করবে।

২। প্রত্যেক দিন অন্তত ২০ থেকে ৩০ মিনিট রোদে থাকুন। তবে খুব সকালের হাল্কা রোদে বসাই ভাল। রোদ কড়া হয়ে গেলে তখন উল্টো ফল হতে পারে। রোদ আপনার শরীরে ভিটামিন ডি তৈরিতে সাহায্য করেব। এতে ইমিউনিটি বাড়বে, দ্রুত সুস্থ এবং সবল হয়ে উঠবেন।

৩। এ সময় তাজা ফল খাওয়ার পাশাপাশি শুকনো ফল খেলেও ভালো ফল পাবেন। একটি খেজুর, বেশ কয়েকটা কিশমিশ, ২-৩টি কাঠ বাদাম পানিতে সারা রাত ভিজিয়ে রাখুন। সকালে উঠে নাস্তার সাথে খেয়ে নিবেন। আবার

৪। সেদ্ধ ভাত, কম তেল-মশলা দিয়ে তৈরি তরকারি, পাতলা মাছের ঝোলের মতো খাবার খান, যাতে হজম করতে সুবিধা হয়। প্রসেস্‌ড ফুড বা বেশি চিনি এই সময় একদম খাবেন না। এগুলো হজম করতে অনেক বেশি সময় লাগে এবং তাতে শরীরে এনার্জি কম তৈরি হয়।

৫। নানা রকম পুষ্টিকর ডালের খিচুড়ি খান একদিন অন্তর অন্তর। খিচুড়ি তৈরি করার সময় কিছু সবজি দিয়ে দেবেন। সপ্তাহে ৩ থেকে ৪ দিন কোনও পুষ্টিকর স্যুপ খাওয়ার চেষ্টা করুন। শাক-সব্জি দিয়ে স্যুপ বানালে বেশি উপকার পাবেন। খাওয়ার এক ঘণ্টা পর এমন কোনও চা বা পানীয় খান যা আপনার রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করবে।

৬। এ সময় যথেষ্ট বিশ্রাম নেওয়া জরুরি। দৈনিক ৭-৮ ঘণ্টা ঘুমাবেন। যদি রাত ১০টায় ঘুম পায়, ঘুমিয়ে পড়ুন। যত বেশি বিশ্রাম নেবেন, তত তাড়াতাড়ি আপনার ক্লান্তি দূর হবে।

Share.

Leave A Reply